Skip to content
Home » বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

আসসালামু আলাইকুম সুপ্রিয় পাঠক বন্ধুরা ডিজিটাল এই যুগে অর্থ লেনদেনের প্রধান মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবস্থা। তাই বিকাশ হয়ে উঠেছে শহর থেকে গ্রাম পর্যায়ে জনপ্রিয় একটি টাকা লেনদেনের মাধ্যমে। আর এ কারণেই বিকাশ একাউন্ট খোলার প্রয়োজনীয়তা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। অনেকে গুগল করেন কিভাবে বিকাশ একাউন্ট খুলতে হয়। প্রয়োজনের তাগিদেই তাই আমাদেরকে জানতে হবে কিভাবে বিকাশ একাউন্ট খুলতে হয়। আমাদের এই ব্লক পোস্টটিতে স্পষ্টভাবে সম্পূর্ণ নিয়মকানুন দেয়া রয়েছে যা থেকে আপনি জানতে পারবেন;জন্ম নিবন্ধন দিয়ে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম মোবাইলে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম।
ঘরে বসে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম ২০২২ ঘরে বসে মোবাইলে বিকাশ একাউন্ট খোলার সহজ নিয়ম বাটন মোবাইলে বিকাশ খোলার নিয়ম বিকাশ একাউন্ট ডিলিট করার নিয়ম বিকাশ একাউন্ট দেখার নিয়ম বিকাশ একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করার নিয়ম বিকাশ একাউন্ট খোলার অফার বিকাশ অ্যাপস বিকাশ অ্যাপস লগইন পাসপোর্ট দিয়ে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম অ্যাপ ছাড়া বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম লাইভ চ্যাট বিকাশ লোন এবং অ্যাকাউন্ট খোলা যায় ঘরে বসে কিভাবে বিকাশ একাউন্ট খুলব ইত্যাদি জানতে পারবেন। এতক্ষণে অবশ্যই বুঝে গেছেন আপনার মনের সম্পূর্ণ প্রশ্ন উত্তর এখানে রয়েছে তাই পুরো টিউটোরিয়ালটি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত দেখুন আপনি অবশ্যই বুঝতে পারবেন এবং আপনার কাঙ্খিত সংকোচের সমাধান পাবেন। তো চলুন বন্ধুরা শুরু করা যাক-

কিভাবে বিকাশের একাউন্ট খোলা যায়:

বাংলাদেশে যতগুলি গ্রাহক সেবা লেনদেনের ক্ষেত্রে মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবস্থা রয়েছে তার মধ্যে বিকাশ সবচাইতে এগিয়ে। লেনদেন ব্যতিরে কেউ অনেক ধরনের সেবা গ্রাহকদের প্রধান করে থাকে বিকাশ গ্রাহকদের বিশ্বাস অর্জন করে ফেলেছে তাই আজকাল সবাই বিকাশের সেবা গ্রহণ করতে চায় কিন্তু অনেকেই আমরা জানিনা কিভাবে বিকাশ একাউন্ট খুলতে হয় চলুন তাহলে শুরু করা যাক বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে জানি ।

বিকাশ একাউন্ট আপনি দুইভাবে খুলতে পারেন

1/  আপনার মোবাইল থেকে সফটওয়্যার এর মাধ্যমে ।
2/  অথবা এজেন্টের মাধ্যমে অর্থাৎ আপনার নিকটস্থ বিকাশের যারা এজেন্ট রয়েছে তাদের দোকানে গিয়েও খুলতে পারে।

এপ্লিকেশনের মাধ্যমে ঘরে বসে বিকাশ একাউন্ট কিভাবে খুলবেন?

আপনি চাইলে নিজ ঘরে বসে কয়েক মিনিটের মধ্যে খুলতে পারেন আপনার সেই কাঙ্খীতে বিকাশ একাউন্ট তার জন্য আপনাকে নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করতেই হবে। প্রথমে আপনাকে আপনার স্মার্টফোন থেকে গুগল প্লে স্টোর থেকে সফটওয়্যার নামাতে হবে বিকাশ লিখে উড়ন্ত পাখির মত লোগো সমৃদ্ধ বিকাশ লেখা অ্যাপসটি মূলত বিকাশ।
আমরা বিকাশের লোগোর ছবি সহ পোষ্টের মাঝখানে দিয়ে দিব।
* প্লে স্টোর থেকে বিকাশ অ্যাপটি ডাউনলোড করে
* এপ্লিকেশনে গিয়ে রেজিস্টার অপশনে গিয়ে প্রথমে আপনাকে যে মোবাইল নম্বর সচল রয়েছে অথবা যে মোবাইল নম্বরে আপনি বিকাশ একাউন্ট খুলতে চান ওই নাম্বারটি সেখানে দিতে হবে.
* তারপর আপনার অপারেটর অপশন বেছে নিয়ে language অপশন ক্লিক করতে হবে।
* তারপর সব নিয়মাবলী এবং শর্ত মেনে নিয়ে আপনার জাতীয় ভোটার আইডির দুপাশের ছবি তুলতে হবে
* বিকাশ থেকে সব তথ্য পূরণ হবে পরবর্তীতে আপনাকে আরো কিছু তথ্য দিতে হবে যেমন লিঙ্গ পেশা আয়ের উৎস ইত্যাদি।
* তারপর পরিপূর্ণ আলোর মধ্যে আপনার একটি স্পষ্ট ছবি তুলতে হবে।
* এরপর বিকাশ থেকে একটি কনফারমেশন এসএমএস আসবে সবশেষে বিকাশের কোড*২৪৭#ডায়াল করে বিকাশের ৫ ডিজিটের একটি গোপন পিন নম্বর সেট করে নিলেই আপনার অ্যাকাউন্ট খোলা হয়ে গেল।

এজেন্টের মাধ্যমে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

এজেন্ট এর মাধ্যমে বিকাশ একাউন্ট খুলতে চাইলে সবার আগে আপনাকে আপনার আশেপাশের নিকটস্থ বিকাশ এজেন্টের কাছেই যেতে হবে।
*আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র এজেন্টকে দিতে হবে।
*আপনার ভোটার আইডির ফটোকপির সাথে দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি দিতে হবে।
*সকল শর্তাবলী এজেন্ট পূরণ করার পর আপনার মোবাইল একটি যাচাই করুন এসএমএস আসবে।
*আপনাকে বিকাশ কোডের মাধ্যমে একটি পিন নাম্বার সেট করতে হবে।
*খুব তো ধাপগুলো অনুসরণ করে আপনি খুব সহজে ঘরে বসে বিকাশ একাউন্ট খুলে নিতে পারবে।

বিকাশ কি?

একটা সময় ছিল যখন ঘরে বসে মুহূর্তের মধ্যে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় টাকা পাঠানোর কথা কল্পনাই করা সম্ভব ছিল না দেশ-বিদেশে টাকা আদান-প্রদানের শুধুমাত্র ব্যাংকের উপর নির্ভর করে থাকতে হতো কিন্তু বিকাশের ফলে মানুষের সেই সমস্যার সমাধান হয়ে গেছে এখন মানুষ তার প্রিয়জনদের কাছে কয়েক মিনিটের মধ্যে টাকা আদান প্রদান করতে পারছেন কোন রকম ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে জনপ্রিয় একটি মাধ্যম এমন একটি মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবস্থা যার মাধ্যমে।

জন্ম নিবন্ধন দিয়ে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

আপনার বয়স যদি ১৮ বছরের কম হয় কিংবা আপনার ভোটার আইডি কার্ড হাতের কাছে না পেয়ে থাকেন কিন্তু কেউ যদি বিকাশ একাউন্ট খুলতে চান সেটা বিকাশ অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে কোনভাবেই সম্ভব নয় কেননা বিকাশ অ্যাপ্লিকেশনে ভোটার আইডি কার্ডের প্রয়োজনীয়তা প্রধান বিবেচ্য।
তবে হতাশ হবার কিছু নেই জন্ম নিবন্ধন দিয়েও অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন তবে আপনাকে যেতে হবে বিকাশ এজেন্টের নিকট আপনাকে আপনার দুই কপি ছবি জন্ম নিবন্ধন নিয়ে যেতে হবে বিকাশ এজেন্টের কাছে তারাই আপনাকে একাউন্ট খুলে দিতে সাহায্য করবে।

বিকাশের সুযোগ সুবিধা

বিকাশের আবির্ভাবের পর আমাদের দৈনন্দিন জীবন হয়ে উঠেছে অত্যন্ত সহজ। আমাদের কাজে-কর্মে অর্থ লেনদেনের ক্ষেত্রে সব সময় পাশে রয়েছে বিকাশ চলুন জেনে নেই বিকাশে কি কি সুবিধা রয়েছে:
*বিকাশের ফলে আমরা মুহূর্তে পৃথিবীর এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে অর্থ লেনদেন করতে পারি।
*বিকাশের মাধ্যমে আমরা আমাদের যাবতীয় বিলসমূহ যেমন টিভি বিল ইন্টারনেট বিল মোবাইল রিচার্জ বিদ্যুৎ বিল সহ সকল ধরনের বিল সমূহ বিকাশের মাধ্যমে পরিশোধ করতে পারি।
*অনেক সময় বিকাশ এসএম ই উদ্যোক্তাদের লোন সুবিধা দিয়ে থাকে
*এছাড়াও অনেক ব্যাংকের থেকে টাকা বিকাশ একাউন্টে ঘরে বসে ট্রান্সফার করে মুহূর্তে টাকা উঠানো যায়।
*বিকাশের মাধ্যমে ঘরে বসে মোবাইল ব্যাংকিং সেবার মাধ্যমে কেনাকাটা করতে পারি।

বিকাশ একাউন্ট ব্যালেন্স দেখার নিয়ম

প্রাণপ্রিয় পাঠক বৃন্দ উপরোক্ত আর্টিকেল পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ে আপনি নিশ্চয়ই এতক্ষণে আপনার বিকাশ একাউন্টটি খুলে ফেলার সক্ষমতা অর্জন করে ফেলেছেন তবে আসুন দেখে নেওয়া যাক কিভাবে বিকাশ একাউন্ট এর ব্যালেন্স চেক দিবেন।
আপনি যদি এপ্লিকেশন বা সফটওয়্যার এর মাধ্যমে ব্যালেন্স চেক করতে চান তাহলে আপনার এন্ড্রয়েড ফোনে বিকাশ অ্যাপ্লিকেশন খুলবেন অর্থাৎ গুগল প্লে স্টোর থেকে বিকাশের অ্যাপসটি ডাউনলোড করে ইন্সটল করবেন এবং আপনার নাম্বার এবং পিন পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করবে পিন নাম্বার প্রদানের পর চেক ব্যালেন্স নামক উপরে একটি অপশন থাকবে সেটার উপর ডাবল টাচ করবেন তাহলে অনায়াসে আপনার ব্যালেন্স দেখতে পারবেন।
আপনার যদি স্মার্ট ফোন না থেকে থাকে আপনার যদি বাটন ফোন থেকে থাকে সেই বাটন ফোন থেকেও আপনি অনায়াসেই আপনার বিকাশের ব্যালেন্স কিংবা বিকাশ ব্যবহার করতে পারবেন। এর জন্য আপনার বাটন ফোনের বাটনে *২৪৭# লিখে ডায়াল করুন এই নাম্বারে।  ৪ নাম্বার অপশনে চেক ব্যালেন্স এ গিয়ে আপনার একাউন্টের টাকা দেখতে পারবেন।

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম

সুপ্রিয় পাঠক বন্ধুরা জীবনে চলার ক্ষেত্রে অনেক কিছুরই ব্যবহার করা হয়ে থাকে এবং প্রয়োজন শেষে কিংবা পরিস্থিতির কারণে ব্যবহার যে জিনিস আবার নষ্ট করে ফেলতে হয় কিংবা ডিলিট করতে হয়। বিকাশ অ্যাপ্লিকেশনটি যখন আপনি সিম পরিবর্তন করতে চান কিংবা সিম হারিয়ে যায় এমত অবস্থায় বিকাশের আইডিটি অনতিবিলম্বে ডিলেট করার প্রয়োজন পড়ে। তাই আপনি যেহেতু বিকাশ একাউন্ট খুলেছেন এবং চালাচ্ছেন সেহেতু আপনাকে এটাও জেনে রাখা জরুরী বিকাশ একাউন্ট কিভাবে বন্ধ করা যায়।
অনেক সময় মোবাইল ফোন হারিয়ে গেলে সিম পরিবর্তন করলে সিম হারিয়ে গেল কোন কাজে বিকাশ একাউন্ট পরিবর্তন করার প্রয়োজন পড়ে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করা একটি দীর্ঘমেয়াদি প্রক্রিয়া এটি আপনি কোন ওয়েবসাইট কিংবা application এর মাধ্যমে করতে পারবেন না কাজটি করার জন্য আপনাকে বিকাশের অফিসে যেতে হবে। বিকাশের অফিসে গিয়ে আপনাকে যে ভোটার আইডি কার্ড ব্যবহার করে একাউন্ট খুলেছেন সেই কার্ডটির সাথে করে নিয়ে যেতে হবে।
আপনি অন্য কারো নাম অ্যাকাউন্ট করা থাকে তাকে সাথে করে নিয়ে যেতে হবে অর্থাৎ আপনার বিকাশ একাউন্ট যদি আপনার প্রতিবেশী কিংবা আত্মীয় স্বজনের কারো ভোটার আইডি দিয়ে খুলে থাকেন তবে ভোটার আইডি কার্ডের প্রধান মালিককেই সাথে নিয়ে যেতে হবে অফিসে। তারপর সমস্ত নিয়মাবলী পূরণ করে ডিলেটকৃত অ্যাকাউন্টের ব্যালেন্স জিরো করে ডিলিট করতে হবে।
পরিশেষে বিকাশ বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় মোবাইল ব্যাংকিং মাধ্যম। ডিজিটাল লেনদেনের ক্ষেত্রে এর জনপ্রিয়তা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে তবে মানুষের স্বভাবের কারণে অর্থাৎ প্রতারক বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে বিকাশ ব্যবহার করার ক্ষেত্রে সচেতন হতে হবে কেউ যদি আপনার কাছে গোপন পিন নাম্বার চায় অবশ্যই কাউকে দেওয়া যাবে না এ ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে এবং কোনভাবেই বিকাশের যে সিম সহ মোবাইল রয়েছে সেটি অন্য কারো হাতে দিবেন না।
বিকাশ ব্যবহার করে আপনি উপকৃত হয়ে থাকলে অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন এবং বিকাশ ব্যবহারে আরো বেশি সচেতনতা অবলম্বন করবে পোস্টটি ভাল লাগলে অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন বিকাশ কেন্দ্রিক যেকোনো সমস্যা হলে অবশ্যই আমাদেরকে কমেন্ট বক্সে জানাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *