Skip to content
Home » ভ্রাতৃত্বকালীন ভাতা কিভাবে পাওয়া যায়

ভ্রাতৃত্বকালীন ভাতা কিভাবে পাওয়া যায়

প্রিয় ভিউয়ার্স আপনাদেরকে আমাদের পেজে স্বাগতম।আজ আমরা আপনাদের মাঝে আলোচনা করতে এসেছি গর্ভ কালীন ভাতা অথবা মাতৃত্বকালীন ভাতা কিভাবে পাওয়া যায়। এটা গরিব অসহায় ও দারিদ্র্য মানুষের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। যে বিষয়টি আজ আমরা আপনাদের মাঝে পোষ্টের মাধ্যমে তুলে ধরেছি। আমাদের এই পোস্টটি তাদের জন্য ইম্পরট্যান্ট অথবা গুরুত্বপূর্ণ যারা দারিদ্র অসহায় মা শিশুর জন্য তেমন কোন কিছুই করতে পারতেছে না সরকারের সহায়তার প্রয়োজন। অসহায় দারিদ্র্য মায়ের গর্ভে যখন সন্তান ধারণ করে তখন থেকে আমাদের সরকার কর্তৃপক্ষ হতে ভাতা প্রদান করা হয়ে থাকে ওই বাচ্চাটির তিন বছর বয়স পর্যন্ত অর্থাৎ ৩৬ মাস।

প্রত্যেক মাসে ৮০০ টাকা প্রদান করা হয়ে থাকে বাচ্চাটির জন্য। আর আপনি তখনই এই ভাতার জন্য আবেদন করতে পারবেন যখন আপনার গর্ভে সন্তানের বয়স হবে ৫ মাস।পাঁচ মাস বয়স হবার পর থেকেই সরকারি নিয়ম অনুযায়ী আপনি ভাতার জন্য আবেদন করতে পারবেন।আমাদের বাংলাদেশের নিয়ম অনুযায়ী অসহায় দারিদ্র প্রতিবন্ধী বঞ্চিত মানুষের পাশে সরকার ভাতা প্রদান করতেছে যখনই তারা গর্ভধারণ করতেছে। তবে হ্যাঁ প্রথম সন্তানের ক্ষেত্রেই ভাতা প্রদান করা হয়ে থাকবে এর পরবর্তী সন্তানগুলোর জন্য ভাতা প্রদান করা হবে না। তবে চলুন আর দেরি না করে ভাতা সম্পর্কে পুরোপুরি জানতে আমাদের এই পোস্টটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন আর আমাদের সঙ্গেই থাকুন। 

গর্ভবতী ভাতা অথবা মাতৃত্বকালীন ভাতার জন্য আবেদন কখন করবে

***প্রথম দ্বিতীয় গর্ভধারণকাল অর্থাৎ যে কোন একবার পাবেন।

***মোট মাসিক আয় ২ হাজার টাকা নিচে থাকতে হবে।

***বয়স কমপক্ষে ২০ বছর বা তার বেশি হতে হবে গর্ভধারিনী মা এর।

***দারিদ্র অসহায় প্রতিবন্ধী মা এর অগ্রধিকার সবার আগে।

***যে মা মাতৃত্বকালীন অথবা গর্ভকালীন ভাতা পেতে চায় তার গর্ভের বয়স পাঁচ মাস বয়স হতে হবে অবশ্যই।

***কেবল শুধুমাত্র বসতবাড়ি রয়েছে বা অন্য জায়গায় বাস করে এমন মাই মাতৃত্বকালীন ভাতা এর সুযোগ পাবেন।

***নিজের কোন কৃষি জমি নেই অন্যের জমিতে চাষবাস করে খায় এমন মাই মাতৃত্বকালীন ভাতা বা গর্বকালীন ভাতা পেয়ে থাকবেন।

***কোন কারণে যদি সন্তানের মৃত্যু হয় আর এই চক্র অসম্পূর্ণ থাকে তাহলে পরবর্তীতে দুই বছরের মাতৃত্ব ভাতা পাবেন ওই মা।

গর্ভবতী বা মাতৃত্বকালীন ভাতার জন্য যেসব কাগজপত্র প্রয়োজন নিম্নে  তা দেওয়া হলো :

২০২১ ২০২২ অর্থবছরে দরিদ্র মায়ের জন্য মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রদান কর্মসূচির আওতায় নতুন উপকার ও কি নির্বাচন করা হবে। আরে সময় যারা বাচ্চা গর্ভে ধারণ করেছে এবং সদ্য বাচ্চা পৃথিবীর বুকে ভূমিষ্ঠ করেছে সবাই এপ্লাই করতে পারবে। অর্থাৎ আবেদন করতে পারবে কিন্তু আবেদন করতে যা যা প্রয়োজন সে কাগজপত্রগুলো অবশ্যই থাকতে হবে।

***ইউনিয়ন পরিষদ কার্যকলায় অর্থাৎ কমিশনারের কার্যকলাপ থেকে জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি জমা দিতে হবে।
***তিন কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি ‌ জমা দিতে হবে।
***গর্ভকরণ বিষয়ক উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নিকট হতে সহ সকল আবেদন নিয়ে পরবর্তী সময়ে যোগাযোগ করতে হবে।
***ইউনিয়ন গর্ভবতী কার্ডের মাধ্যমে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ইউপিতে গর্ববতী ভাতা প্রদান করা হবে ‌। উপরোক্ত  সবগুলো কাগজ ছবি একসঙ্গে যুক্ত করে জমা দিতে হবে তাহলে আবেদন করার পদ্ধতি কাজ শেষ হবে।

মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রদান কিভাবে করা হয়

ভ্রাতৃত্বকাল ভাতা নামের অ্যাকাউন্টে জমা প্রদান করা হয়।পরবর্তীতে ভাতা ভোগীদের মাঝে ভাতার অর্থ প্রেরণের লক্ষ্যে জেলা উপজেলা মহিলা বিষয় কর্মকর্তা উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা অফিসার যৌথ স্বাক্ষরে পরিচালিত মাদার একাউন্ট হতে স্ব -স্ব ভাতা ভগীদের নামে একটা ১০ টাকার হিসাব খোলা হয়। সং লিস্ট ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে হবে সরকারি সোনালী ব্যাংক। স্ব ব্যাংকের একাউন্টে টাকা চলে যাবে নির্বাচিত উপকারভোগী ব্যক্তির জন্য।আর পরবর্তীতে সেই নির্বাচিত উপকারভোগী ব্যক্তি ওই টাকা চেকের মাধ্যমে তুলতে পারবে।প্রতিমাসে ৮০০ টাকা করে মোট ২৪ মাসে এ পর্যন্ত এই টাকা প্রদান করা হবে।

অনলাইনে গর্ভবতী কার্ড করার নিয়ম ২০২২

নির্ধারিত ফরমে আবেদনের পর অবশ্যই নিম্নোক্ত ফরম মহিলা ও শিশু বিষয়ক কেন্দ্রে তথ্য এন্ট্রি নিশ্চিত করতে হবে।

মাতৃত্বকাল ভাতা ২০২২ 

শিশু ভাতা ২০২২ এমআইএস অনলাইন এন্ট্রি সফটওয়্যার

নির্বাচিত ভাতাভোগীর তথ্যাবলী মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের অনলাইন ডাটাবেজ এন্ট্রি করতে হবে। মাতৃত্বকাল ভাতা কর্মসূচী MIS এ এন্ট্রি  না হলে কোন ভাবে এ ভাতা প্রাপ্য হবে না। কর্তৃপক্ষ যে কোন অসম্পূর্ণ আবেদন বা অযোগ্য বিবেচিত আবেদন বাতিল করতে পারেন। উপকার ভোগী নির্বাচন সংখ্যা দেখুন

 

সর্বশেষে বলতে চাই যে এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য আপনাদেরকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। আপনাদের মূল্যবান সময় আমাদের সঙ্গে দেবার জন্য ধন্যবাদ।আমরা এতক্ষণ চেষ্টা করছি আপনাদের সামনে তুলে ধরার জন্য ভাতৃত্বকালীন ভাতা কিভাবে পাওয়া যায় এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কে।আমাদের এই পোস্টটি তাদের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় বিশেষ করে যারা দারিদ্র অসহায় মাতৃত্বকালীন ভাতা খুজতেছেন তারা আমাদের এই পোস্টে ভিজিট করলেই পেয়ে যাবেন। ভাতৃত্বকালীন ভাতা পাবার জন্য বিস্তারিত তথ্য।তবে আজ আর নয় আবার অন্য কোনদিন অন্য কোন পোস্টে আপনাদের সঙ্গে দেখা হবে সেই পর্যন্ত ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আপনাদের দীর্ঘ আয়ু কামনা করছি আল্লাহ হাফেজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *